Home রাজনীতি পল্লীবন্ধু এরশাদ হঠাৎ তেমন কাউকেই চিনতে পারছেন না

পল্লীবন্ধু এরশাদ হঠাৎ তেমন কাউকেই চিনতে পারছেন না

1658
0

সাবেক রাষ্ট্রপতি ও জাতীয় পার্টির চেয়ারম্যান হুসেইন মুহাম্মদ এরশাদের শারীরিক অবস্থা খুবই নাজুক হয়ে পড়েছে। তাই চিকিৎসার জন্য আগামী ২০ জানুয়ারি (রোববার) দুপুরে তাকে ফের সিঙ্গাপুর নেয়া হবে।
পার্টির প্রেসিডিয়াম সদস্য আজম খান এরশাদের সিঙ্গাপুরে যাওয়ার বিষয়টি নিশ্চিত করেছেন। তিনি জানান, ২০ তারিখ দুপুরে চিকিৎসার জন্য দলীয় প্রধান এরশাদ সিঙ্গাপুরে যাচ্ছেন।
সূত্র জানায়, গত ৩ মাস ধরেই এরশাদ অসুস্থ। রবিবার তাকে আবারও সিঙ্গাপুর উন্নত চিকিৎসার জন্য নেয়া হবে।এই দিকে শারীর অবস্থা এত খারাপ যে, প্রতি ৪ দিন পর পর তাঁর শরীরে রক্ত দিতে হচ্ছে।
শরীরে রক্ত উৎপাদন ক্ষমতা কমে গেছে।
অনেক সময় দলের নেতা কর্মীদের তিনি চিনতে পারছেন না। অনেকের নাম মনে করতে পারছেন না।
এই অবস্থায় দেশে রাখা ঠিক হবে না বলে দলীয়ভাবে সিঙ্গাপুর নিয়ে যাওয়ার সিদ্ধান্ত নিয়েছেন।
এদিকে শুক্রবারও জাতীয় পার্টির চেয়ারম্যান সাবেক রাষ্ট্রপতি হুসেইন মুহম্মদ এরশাদের অবর্তমানে বা চিকিৎসার জন্য বিদেশে থাকাকালে জাতীয় পার্টির চেয়ারম্যানের দায়িত্ব পালন করবেন কো-চেয়ারম্যান গোলাম মোহাম্মদ কাদের।
পার্টির চেয়ারম্যান পল্লীবন্ধু হুসেইন মুহম্মদ এরশাদ জাতীয় পার্টির গঠনতন্ত্রের ২০/১/ক ধারা মোতাবেক তাকে এই নিয়োগ দিয়েছেন। যা ইতোমধ্যেই কার্যকর হয়েছে।
শুক্রবার গণমাধ্যমে পাঠানো এরশাদের ডেপুটি প্রেস সেক্রেটারি খন্দকার দেলোয়ার জালালী স্বাক্ষরিত এক সংবাদ বিজ্ঞপ্তিতে এই তথ্য জানানো হয়।
জাতীয় পার্টির একজন প্রেসিডিয়াম সদস্য বলেছেন, , একাদশ জাতীয় সংসদ নির্বাচনের আগে থেকেই তার শরীরের অবস্থা ভালো নয়। এরশাদ এবার যে পরিমাণে অসুস্থ হয়েছেন তাতে মনে হচ্ছে না তিনি দলের দায়িত্ব নিতে পারবেন। সে কারণে তিনি তার অবর্তমানে তার ভাই জিএম কাদেরকে দায়িত্ব বুঝিয়ে দিয়েছেন।

তিনি জানিয়েছেন, তবে বিষয়টি নিয়ে দলের মধ্যে অস্থিরতা রয়েছে। এরশাদের স্ত্রী দলের আরেকজন কো-চেয়ারম্যান রওশন এরশাদ ও তার সমর্থকরা বিষয়টি মেনে নিতে পারছেন না।

উল্লেখ্য, একাদশ জাতীয় সংসদে এরশাদকে বিরোধী দলীয় নেতা করে সম্প্রতি প্রজ্ঞাপন জারি করে বাংলাদেশ জাতীয় সংসদ সচিবালয়। একই সঙ্গে প্রজ্ঞাপনে জিএম কাদেরকে সংসদীয় বিরোধী দলের উপনেতা হিসেবে উল্লেখ করা হয়।